Admin NoticeEducationalOnline Earning

Freelancer.com এ একাউন্ট খোলা থেকে শুরু করে শেষ পর্যন্ত নতুনদের জন্য

আজকে আলোচনা করবো Freelancer.com কে নিয়ে । তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

Freelancer.com কে?

ফ্রিল্যান্সার ডটকম হ’ল বিশ্বের বৃহত্তম ফ্রিল্যান্সিং এবং ক্রাউডসোর্সিং মার্কেটপ্লেস । বর্তমানে Freelancer.com এর  ব্যবহারকারী সংখ্যা 51,761,347 জন এবং প্রজেক্টের সংখ্যা 19,789,850 (আর্টিকেল লেখা চলাকালীন)

আপনি এখানে প্রচুর কাজ পাবেন কিন্তু কম্পিটিটর এর পরিমাণও প্রচুর । সুতরাং স্কিল্ড পার্সন ছাড়া এখানে ভ্যালু নেই বললেই চলে।

ফ্রিল্যান্সার ওয়েবসাইটি মুক্ত পেশাজিবীদের জন্য বেশ জনপ্রিয় মাধ্যম, বিশেষ করে নতুনদের জন্য । নতুনরা সাধারনত এই ওয়েবসাইটেই প্রথম একাউন্ট খুলে থাকেন। তবে মার্কেটপ্লেসে একাউন্ট খোলার আগে যে বিষয়গুলো অবশ্যই মনে রাখা জরুরীঃ

  • ভালোভাবে কাজ শিখার আগে কোন মার্কেটপ্লেসে একাউন্ট খুলবেন না, অন্যথায় আপনার প্রোফাইল সাসপেন্ড হওয়ার সম্ভাবনা ৯৯%!  (বেশিরভাগ মার্কেটপ্লেসে আপিনি নেশনাল আইডিকার্ড দিয়ে প্রোফাইল ভেরিফাই করতে হবে তাই জীবনে দ্বিতীয়বার আপনার নামে একাউন্ট খুলতে পারবেন না)
  • একাউন্ট খোলার সময় কোন ফেক তথ্য দিবেন না
  • আপনার একাউন্টের নাম, এন আইডি এবং ব্যাংক একাউন্ট সব যাগায় নাম জন্ম তারিখ ইত্যাদি একই হতে হবে
  • অন্যদের প্রোপাইলের তথ্য বা প্রোটফোলিও কপি পেস্ট করবেন না। (রিপোর্ট করলে প্রোফাইল সাসপেন্ড হয়ে যাবে)

কিভাবে Freelancer.com এ একাউন্ট করতে হয়?

প্রথমে আপনাকে Freelancer.com.bd এই লিংকে যেতে হবে এবং নিচের ছবি অনুযায়ী আপনাকে এগিয়ে যেতে হবে ।

আপনি দুই ভাবে একাউন্ট করতে পারেন । যদি আপনি ফেসবুক দিয়ে সাইন আপ করতে চান তাহলে “Continue with Facebook” দিয়ে সাইন আপ করতে পারেন ।

অথবা আপনি যদি আপনার ইমেইল দিয়ে সাইন আপ করতে চান সেটাও পারবেন ।

নিচের ছবির মত আপনার ইমেইল এবং একটা শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন। এবং ইমেইল ও পাসওয়ার্ড সংরক্ষণ করুন পরবর্তিতে সাইন ইন করার জন্য।

Freelancer.com

তবে আপনাকে অনুরোধ করবো Freelancer.com এর  User Agreement and Privacy Policy পড়ে নেওয়ার জন্য।

দ্রঃ আপনাকে অবশ্যই আগে থেকে একটা ফ্রেশ জিমেইল বা ইমেইল একাউন্ট ওপেন করে রাখতে হবে । এবং একটা ফোন নাম্বার দরকার হবে । একাউন্ট এর প্রাথমিক ভেরিফিকেশন এর জন্য প্রয়োজন হবে ।

কিভাবে Freelancer.com এ একাউন্টের ইমেইল ভেরিফাই করতে হয়?

ব্যাস আপনি সাইন আপ বাটনে ক্লিক করার মাধ্যমে আপনি সফল ভাবে সাইন আপ করতে পেরেছেন । এবার আপনাকে আপনার একাউন্ট এর ইমেইল ভেলিড কিনা এটা ভেরিফাই করতে হবে । আপনার ইমেইল একটা মেইল পাঠিয়ে দেবে । মেইলটা দেখতে এমনঃ

Freelancer.com

ইমেইজ সোর্সঃ Mamunsblog.net

আপনি “Verify your email” বাটনে ক্লিক করার মাধ্যমে আপনার ইমেইল ভেরিফাই হয়ে যাবে ।

কিভাবে ফ্রিল্যান্সার ডট কম একাউন্টের ফোন নাম্বার ভেরিফাই করতে হয়?

সফল ভাবে ইমেইল ভেরিফাই করার পরে আপনাকে আপনার ফোন নাম্বার ভেরিফাই করতে হবে ।
আপনি আপনার ড্যাশবোর্ডে গেলে এই রকম একটা নোটিফিকেশন পাবেনঃ

Freelancer.com

ইমেইজ সোর্সঃ Mamunsblog.net

আপনাকে ফ্রিল্যান্সার ডট কম থেকে একটা ভেরিফিকেশন কোড পাঠানো হবে । আপনি ঐ কোড দিয়ে ভেরিফাই করে নিবেন।

কিভাবে ফ্রিল্যান্সার ডট কম আইডিতে ওভার ভিউ লিখতে হয়?

এবার গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে কথা বলবো । আপনি কি করেন? আপনি কোন বিষয় নিয়ে কাজ করনে? আপনি কোন কোন বিষয়ে এক্সপার্ট আপনার পড়া লেখা কতদূর । আপনি কোন ইউনিভার্সিটিতে পড়েছেন? এইসব কিছু আপনাকে আপনার প্রোফাইলে সুন্দর ভাবে সাজাতে হবে । যাতে করে কোনো ক্লায়েন্ট আপনার আইডিতে গেলেই বুঝতে পারে আপনি নতুন হলেও প্রোফেশনাল ।

Freelancer.com

ইমেইজ সোর্সঃ Mamunsblog.net

আপনাকে একটা সুন্দর Professional Headline লিখতে হবে । আপনি কি বিষয়ে এক্সপার্ট এই ব্যাপারে।
আপনি কে/ কোথায় থাকেন? কি কি জানেন? কোথায় কোথায় কাজ করেছেন? আগের কোনো ক্লায়েন্টের গুরুত্বপূর্ণ কোনো কথা থাকলে লিখতে পারেন Summary এর মধ্যে ।

আপনার নিজের একটা সুন্দর ছবি আপলোড করবেন আপনার প্রোফাইলে। দেখতে নতুন হলেও ছবি দেখে যেন মনে হয় আপনি আসলেও প্রফেশনাল ।
এরপরে যেটা বাদ থাকলো সেটা হলো আপনাকে একটা সুন্দর বাজেট দিতে হবে আউয়ারলি চার্জ হিসেবে। আপনি কত ডলার প্রতি ঘন্টা চার্জ নেন। এইটা আপনার দক্ষতার উপরে নির্ভর করে।

কিভাবে ফ্রিল্যান্সার ডট কম আইডিতে পোর্টফোলিও এড করতে হয়?

এখন আসুন আপনার কাজ বা আপনি আগে যে কাজ গুলো করেছেন সেগুলোকে পোর্টফোলিও বানিয়ে আপলোড করা যাক। প্রথমে আপনার প্রোফাইলে গিয়ে নিচের দিকে চলে আসুন । এরপরে এই রকম দেখতে পাবেনঃ

Freelancer.com

ইমেইজ সোর্সঃ Mamunsblog.net

ম্যানেজে ক্লিক করার পরে আপনাকে প্রোর্টফোলিও এড করার জন্য নিয়ে যাবে অন্য একটা পেজে । সেখান থেকে আপনি আপনার ইচ্ছা মত পোর্টফোলিও যুক্ত করতে পারবেন । তবে অন্যদের প্রোপাইলের তথ্য বা প্রোটফোলিও কপি পেস্ট করবেন না। (রিপোর্ট করলে প্রোফাইল সাসপেন্ড হয়ে যাবে)

শেষ কথা

আপনার এক্সপেরিয়েন্স, এডুকেশন বা কোয়ালিফিকেশন এসব গুলো যুক্ত করে নেওয়ার অনুরোধ থাকবে । কারণ, একটা প্রোফেশনাল একাউন্টে এসব থাকা জরুরী । আরেকটা ব্যাপারে বলি, আপনি যদি স্কিল্ড না হন তাহলে আপনাকে অনুরোধ করবো মার্কেটপ্লেসে আসার দরকার নেই । যদি আসতে চান তাহলে কিছু একটা জেনে আসুন কাজে লাগবে । নিউবিদের কাজ দিতে চায় না অনেক ক্লায়েন্ট কিন্তু অনেক ক্লায়েন্ট আছে যারা নতুনদের অনেক প্রাধান্য দেয় । যাতে করে তারাও নিজেদেরকে প্রমাণ করার মত সুযোগ পায় ।

আজকের মত আলোচনা এখানেই শেষ করছি । যদি ভালো লাগে তাহলে শেয়ার করতে ভুলবেন না। ভুল ত্রুটি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন ।

দেখা হবে আগামীতে নতুন কোনো আর্টিকেল নিয়ে আবার হাজির হবো ইনশাহ আল্লাহ্‌ । আল্লাহ্‌ হাফেজ ।

 

credit to : TrickBD

Leave a Reply

Back to top button